Home সারাদেশ ওসমানী হাসপাতালে নিয়োগ : টাকা উড়ছে আকাশে বাতাসে

ওসমানী হাসপাতালে নিয়োগ : টাকা উড়ছে আকাশে বাতাসে

by jonoterdak24
0 comment

 

 

14জনতার ডাক:সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়োগকে কেন্দ্র করে আকাশে বাতাসে টাকা উড়ছে। নিয়োগ পাওয়ার আশায় প্রার্থীরা আগে ভাগেই নির্ধারিত পরিমাণ টাকা দিয়ে কাঙ্খিত পদের জন্য বুকিং দিচ্ছেন। চ্যানেল অনুযায়ী প্রার্থীর কাছ থেকে জমা নেওয়া হচ্ছে টাকা। হাসপাতাল পরিচালনা পরিষদের ২-৩ জন কর্মকর্তা অত্যন্ত গোপনীয়ভাবে ওই টাকা সংগ্রহ করছেন বলে সূত্র জানিয়েছে।

সূত্র জানায়, ওসমানী হাসপাতালের ৮টি পদে ৪০ জন লোক নিয়োগের জন্য গত ১৪ জুন পত্রিকায় বিজ্ঞাপন প্রকাশ করা হয়। পদগুলো হচ্ছে একজন কোষাধ্যক্ষ, ২ জন ওয়ার্ড মাস্টার, একজন মেডিক্যাল রেকর্ড কিপার, একজন টেইলার, একজন ইলেকট্রিশিয়ান, ১৯ জন অফিস সহায়ক, একজন মশালচী ও ১৪ জন পরিচ্ছন্ন কর্মী।

এই নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পরপরই বোকার যুবক ও যুবতীরা হুমরি খেয়ে পড়েন। যেকোনো মূল্যে তাদের চাকরি চাই। চাকরির জন্য প্রয়োজনে বাড়ি বিক্রি করবেন। তারপরও চাকরি হাতছাড়া করা যাবে না।

আবেদনপত্র জামা দেওয়ার আগেই হাজার হাজার প্রার্থী হাসপাতালে গিয়ে বিভিন্ন নেতার সঙ্গে যোগাযোগ করতে থাকে। যোগাযোগ করতে থাকে সিলেট আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গেও। প্রথমে নিয়োগকারীদের ডিমান্ড ছিল সামান্য। কিন্তু হাজার হাজার প্রার্থীর অগ্রীম ঘুরঘুরের কারণে ডিমান্ড বেরে তা হয়ে যায় আকাশচুম্বি।

সূত্র জানায় প্রথমে তিন লাখ টাকায় বিক্রি হয়েছিল টেইলারিং পদ। কিন্তু দুইদিনের মাথায় ওই পদটি বিক্রি হয়ে যায় ৮ লাখ টাকা। এখন ওই পদের দাম হা্কা হচ্ছে ১০ লাখ টাকা। একইভাবে কোষাধ্যক্ষ, ওয়ার্ড মাস্টার. মেডিক্যাল রেকর্ড কিপার ও ইলেকট্রিশিয়ানের পদ ১০ লাখ টাকা বিক্রি করতে দাম নির্ধারণ করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ জন্য প্রতিটি পদের বিপরীতে একাধিক ব্যক্তি চাহিদা মাফিক টাকাও জমা করেছেন বলে সূত্র জানায়। এখানেও যার শক্তি বেশি তার চাকরি পাওয়ার নিশ্চয়তা বেশি।

সূত্র জানায়, অফিস সহায়ক, মশালচি ও পরিচ্ছন্ন কর্মীর পদের জন্য ৫ লাখ টাকা করে প্রাথমিকভাবে ঘুষ নির্ধারণ করা হয়েছে। চাহিদা মাফিক বিপুল সংখ্যক লোক ইতিমধ্যে টাকা জমা দিয়েছেন। কিন্তু সবাই এ ক্ষেত্রে চাকরি পেতে ব্যর্থ হবেন বলে অভিযোগ উঠেছে। যাদের টাকা ও শক্তি উভয়টা আছে তারাই চাকরি লাভে সফল হবেন বলে সূত্র জানিয়েছে।

সূত্র জানায়, এই নিয়োগ প্রক্রিয়ায় প্রকাশ্যে দরদাম হাকা হচ্ছে। আওয়ামী লীগের অনেক নেতা প্রকাশ্যে বলছেন যাদের টাকা আছে তারাই চাকরি পাবেন। এখানে প্রকাশ্য আর অপ্রকাশ্যর কোনো ব্যাপার নেই।

 

Related Posts

Leave a Comment


cheap jerseyscheap jerseyscheap nfl jerseyscheap jerseys from chinacheap mlb jerseyscheap nhl jerseyscheap jerseyscheap nfl jerseyscheap mlb jerseyscheap nfl jerseys