Home আইন করোনা: সংক্রমন এড়িয়ে চলার উপায় আতংক নয়, দরকার সচেতনতা ও সতর্কতা

করোনা: সংক্রমন এড়িয়ে চলার উপায় আতংক নয়, দরকার সচেতনতা ও সতর্কতা

by Chief Editor
0 comment

 

করোনা: সংক্রমন এড়িয়ে চলার উপায়
আতংক নয়, দরকার সচেতনতা ও সতর্কতা মেট্রোপলিটন পুলিশ এসএমপি সিলেট

১. অতি জরুরী প্রয়োজন ছাড়া বাড়ির বাইরে যাবেন না। বাইরে যেতে হলে সব সময় মাস্ক ব্যবহার করুন।

২. আপনি নিজে বা আপনার পরিবার নিয়ে অন্য কারো বাড়িতে বেড়াতে যাওয়া থেকে বিরত থাকুন এবং অন্যদেরও আপনার বাড়িতে বেড়াতে আসা থেকে বিরত থাকতে বলুন।

৩. আপনার সন্তানকে নিয়ে বাড়ির বাইরে অন্য কোথাও আনন্দ ভ্রমনে বা পিকনিকে যাওয়া থেকে বিরত থাকুন, এমনকি তাদেরকে বাড়ির বাইরে খেলতে যাওয়া, টিউশন, কোচিং, নাচ বা গানের ক্লাস থেকেও বিরত রাখুন।

৪. বাসায় ছুটা বুয়া রাখা পরিহার করুন। যদি কাজের লোক রাখতে হয় তাহলে তাকে স্থায়ী ভিত্তিতে রাখুন।

৫. সামাজিক, সাংস্কৃতিক, ধর্মীয় ও রাজনৈতিক অনুষ্ঠান আয়োজন ও তাতে অংশগ্রহণ করা হতে বিরত থাকুন।

৬. জনবহুল/গণসমাগমস্থলে (সিনেমাহল, পার্ক, মেলা, প্রদর্শনী, জিমনেসিয়াম, সুইমিং পুল, শপিং মল ইত্যাদি) গমন করা থেকে বিরত থাকুন।

৭. বিশেষ প্রয়োজন ব্যতীত গণপরিবহন (বাস, ট্রেন, লেগুনা, লঞ্চ, ফেরী, অটোরিকশা, সিএনজি ইত্যাদি) ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন। মনে রাখবেন, জনবহুল এলাকা, গণসমাগমস্থল ও গণপরিবহন করোনা ভাইরাস সংক্রমিত হওয়ার জন্য সবচেয়ে উপযোগী ক্ষেত্র।

৮. গণপরিবহনে চড়ার সময় যথাসম্ভব পরিবহনের দরজার হাতল, দাঁড়িয়ে থাকা যাত্রিদের ধরার জন্য ছাদ থেকে ঝুলানো লোহার পাইপ বা হাতল এবং সিটের হেলানির উপরে হাত দিয়ে ধরা পরিহার করুন।

৯. শুভেচ্ছা বিনিময়ের সময় হ্যান্ডশেক বা আলিঙ্গন করাসহ যেকোনো শারীরিক সংস্পর্শ থেকে বিরত থাকুন।

১০. সিঁড়ি, এস্কেলেটর বা লিফ্টের রেলিং হাত দিয়ে ধরবেন না। এছাড়াও, লিফ্টের বাটন, বাসা-বাড়ি, অফিস-আদালত বা গাড়ির দরজার হাতল ধরার সময় টিস্যু বা রুমাল ব্যবহার করুন।

১১. খবরের কাগজ, টাকা বা অন্য যেকোনো কিছু যা অন্য আরো অনেকের ধরার সম্ভাবনা থাকে, সেগুলো ধরার পর সাবান দিয়ে ভালোভাবে হাত ধুয়ে নিন। সম্ভব হলে মানি ব্যাগ ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন।

১২. বাইরে থেকে এসে কোথাও না বসে বা কোনো কিছু স্পর্শ না করে সরাসরি বাথরুমে চলে যান। প্রথমে আপনার ব্যবহৃত কাপড়গুলো সাবান বা ডিটার্জেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে ফেলুন। তারপর সারা গায়ে এবং মাথায় ভালো করে সাবান ও শ্যাম্পু মেখে গোসল করে নিন।

১৩. বাড়ির ভিতরে এবং বাইরে আলাদা আলাদা জুতা ব্যবহার করুন। বাইরে ব্যবহার করা জুতা বা স্যান্ডেল বাড়ির বা বাসার দরজার বাইরে রাখুন।

১৪. বাজার, দোকান বা বাহির হতে বা অন্য কারো কাছ থেকে কোনো কিছু ঘরে আনার পর সেগুলো সাথে সাথে না খুলে অন্তত এক দিন ঘরের এক কোনে নিরাপদ দুরত্বে রেখে দিন। এতে করে সেগুলার সাথে কোনো ভাইরাস থেকে থাকলেও সেগুলো মারা যাবে।

১৫. মোবাইল ফোন, রিমোটসহ অন্যান্য নিত্য ব্যবহার্য গেজেট বা ইলেক্ট্রনিক সামগ্রী এবং কম্পিউটার বা ল্যাপটপের কি-বোর্ড ও মাউস ঘন ঘন এন্টিসেপ্টিক দিয়ে পরিষ্কার করুন। অন্য কোনো ব্যক্তির এসকল সামগ্রী ধরা থেকে বিরত থাকুন।

১৬. হাত না ধুয়ে খালি হাতে নাক, মুখ ও চোখ স্পর্শ করবেন না। আবশ্যিক না হলে নাক, মুখ ও চোখ স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকুন। মনে রাখবেন, এই তিন পথে করোনা ভাইরাস আপনার শরীরে প্রবেশ করতে পারে।

Related Posts

Leave a Comment


cheap jerseyscheap jerseyscheap nfl jerseyscheap jerseys from chinacheap mlb jerseyscheap nhl jerseyscheap jerseyscheap nfl jerseyscheap mlb jerseyscheap nfl jerseys