নিউজ ডেস্ক ।। কিডনির সংক্রমণ মানবশরীরের মারাত্মক রোগগুলোর মধ্যে একটি। কিডনির সংক্রমণকে ‘নীরব ঘাতক’ হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়। কারণ, সমস্যা প্রকট হওয়ার আগ পর্যন্ত সংক্রমণের লক্ষণগুলি তেমনভাবে প্রকট হয় না।

কিডনিতে পাথর হওয়ার ঝুঁকি কমাতে আগে থেকেই তাই সাবধান হওয়া জরুরি। এজন্য কিছু বিষয় অনুসরণ করতে

পারেন। যেমন-

কাঁচা লবণ খাবেন না: কাঁচা লবণ স্বাস্থ্যের জন্য খুবই ক্ষতিকর। কারণ লবণের সোডিয়াম খুব কিডনি খুব সহজে দূর করতে পারে না । তখন লবণ জমা হতে থাকে কিডনিতে। এ ছাড়াও অতিরিক্ত সোডিয়াম সমৃদ্ধ খাবারের কারণেও কিডনিতে পাথর জমার ঝুঁকি বাড়ে।

পরিমিত পানি পান করুন: নিযমিত পরিমিত পরিমাণে পান পান করতে না পারলে কিডনি সঠিক ভাবে শরীরের বর্জ্য দূর করতে পারে না। তখন ওই বর্জ্য কিডনিতে জমা হতে থাকে পাথর হিসেবে। এ কারণে দৈনিক পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি পান করা উচিত।

কিডনি সুস্থ রাখতে কিছু বিষয় মেনে চলা জরুরি। যেমন-

১. প্রতিদিন অন্তত ৭ থেকে ৮ গ্লাস পানি পান করুন।

২. কখনই প্রসাব চেপে রাখবে না। এতে সংক্রমণের আশঙ্কা বাড়ে।

৩. চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া কোনও ওষুধ, বিশেষ করে ব্যথানাশক ওষুধ বা কোনও অ্যান্টিবায়োটিক খাওয়া ঠিক নয়।

৪. বয়স চল্লিশ পার হলে নিয়মিত বছরে অন্তত একবার ডায়বেটিস ও উচ্চ রক্তচাপ পরীক্ষা করান। এসব সমস্যা থাকলে তা নিয়ন্ত্রণে রাখুন।

৫. বছরে অন্তত একবার প্রসাবের মাইক্রো-এলবুমিন পরীক্ষা করান। সূত্র: জি নিউজ