Home সারাদেশ জালালাবাদে যৌতুকের বলি একসন্তানের জননী

জালালাবাদে যৌতুকের বলি একসন্তানের জননী

by jonoterdak24
0 comment

15

নিজস্ব প্রতিবেদক:সিলেট সদরের জালালাবাদে যৌতুকের বলি হয়েছে এক গৃহবধূ। বুধবার বিকালে স্বামীর বাড়ি থেকে পুলিশ তার জুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে। মৃত সাজনা বেগম (২৩) জালালাবাদ থানার দিঘলবাক নোয়াগাওঁয়ের লিয়াকত আলীর স্ত্রী ও একসন্তানের জননী। তার পিতার বাড়ি পার্শ্ববর্তী পূরানকারারুকা গ্রামে। সে ওই গ্রামের মখই মিয়ার মেয়ে।

মৃতার পিতৃপরিবারের অভিযোগ সাজনাকে তলপেটে লাথি মেরে হত্যা করার পর আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দিতে লাশ ঝুলিযে রাখা হয়েছে। পুলিশ বলছে মৃত্যৃর ঘটনাটি রহস্যজনক হওয়ায় থানায় সাধারণ ডায়েরী করে লাশ ময়না তদন্তের জন্য সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ মর্গে প্রেরন করা হয়েছে।

জানা গেছে, তিনবছর আগে দিঘলবাক নোয়াগাঁওয়ের রইছ আলীর পুত্র প্রবাসফেরত লিয়াকত আলীর সাথে বিয়ে হয় সাজনা বেগমের। বিয়ের পর তাদের ঘরে একটি কন্যা সন্তান জন্ম নেয়। সাজনার পিতৃপরিবারের অভিযোগ যৌতুক দাবিতে লিয়াকত ও তার পরিবার সবসময় সাজনাকে শারিরীক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করতো। বুধবার দিনদুপুরে লিয়াকত ও তার পরিবারের লোকজন যৌতুক দাবিতে সাজনাকে মারধর করে। এক পর্যায়ে লিয়াকত সাজনার তলপেটে জোরে লাথি মারলে সাজনা মাটিতে লুটে পড়ে ও তার যোনী দিয়ে রক্ত ঝরতে শুরু করে। পরে সাজনা মারা গেলে লিয়াকতে পরিবারের লোকজন গলায় ওড়না পেচিয়ে ঘরে খাটে ভর করে তীরের সাথে তাকে ঝুলিয়ে রেখে পুলিশকে খবর দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য সিলেট ওসমানী মেডিকের কলেজ মর্গে প্রেরণ করে।

বৃহস্পতিবার ময়না তদন্ত শেষে বিকেলে লাশ দাফন করা হয়। এ ব্যাপারে সাজনার স্বজনরা মামলা দিতে চাইলে মামলা নেয়নি জালালাবাদ থানা পুলিশ। পুলিশ একটি সাধারন ডায়েরী করে ময়না তদন্ত করিযেছে।

এ ব্যাপারে সিলেটের জালাবাদ থানার অফিসার ইনচার্জ আক্তার হোসেন জানান, সাজনার মৃত্যু রহস্যজনক। হত্যা না আত্ম হত্যা তা পরিষ্কার নয়, তাই থানায় সাধারন ডায়েরী করে ময়না তদন্ত সম্পন্ন করা হয়েছে। ময়না তদন্ত রিপোর্ট পাওয়ার পর হত্যা না আত্মহত্যা এ ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া যাবে।

 

Related Posts

Leave a Comment