Home আন্তর্জাতিক তনু, ক্ষমা করো বোন

তনু, ক্ষমা করো বোন

by jonoterdak24
0 comment
এম জে এইচ জামিল
প্রকাশ : ২০১৬-০৩-২৪ সময় : ২০:২৩
 ‌‍তনু,  ক্ষমা করো বোন  সংবিধানে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বহাল রাখার দাবীতে ভাসছে ফেবু ইউজারদের টাইমলাইন। কারো টাইমলাইনে শোভা পাচ্ছে ইউনিয়ন নির্বাচন নিয়ে রম্য রচনা। কারো টাইমলাইনে ক্রিকেট সমগ্র। কিন্তু এই সময়ে আমার দেশে এমন একটা জঘন্য নৃশংস ঘটনা ঘটে গেল অথচ তা নিয়ে ফেবুতে খুব কম মানুষের মাথা পরিলক্ষিত হলো। কি হবে সংবিধানে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম থাকলে। যদি এই দেশে জানুয়ারদের সংখ্যা ক্রমাগত বেড়ে যায়। কি হবে নির্বাচনে জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত হয়ে।  তারাও রাষ্ট্রযন্ত্রের যাতাকলে পিষ্ট হয়ে এক সময় বরখাস্ত হবে। অতিমাত্রায় ক্রিকেট নিয়ে মত্ততা থেকে কি লাভ যদি তা আমাদের মানবতাবাদী থেকে কঠিন পাথরে পরিনত করে। কথা একটাই বাংলাদেশে জনসংখ্যা বাড়ছে কিন্তু কমছে মানুষের সংখ্যা। আসুন সবাই মানুষ হই। মানবতাবোধ জাগ্রত করি। নৃশংসতার বিরুদ্ধে রুখে দাড়াই।  এবার মুল ঘটনায় আসা যাক।
কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের ইতিহাস বিভাগের (সম্মান) ছাত্রী এবং একই কলেজের নাট্য সংগঠন ‘ভিক্টোরিয়া কলেজ থিয়েটারের (ভিসিটি) সদস্য সোহাগী জাহান তনু (১৯) কে ধর্ষণের পর গলা কেটে হত্যা করলো দৃর্বত্তরা ।

পরিবারের অসচ্ছলতার কারণে সোহাগী পাড়াশোনার পাশাপাশি বাসার কাছে অলিপুর গ্রামেই এক বাসায় টিউশনি করে লেখাপড়ার খরচ চালিয়ে আসছিল। কিন্তু সেটাও সহ্য হলনা সমাজের রাক্ষুসে মানব খেকোদের ।
‘সন্ধ্যা ৫ টায় বের হয়েছ, প্রাইভেট পড়িয়ে আসার পথে, পিছন থেকে আঘাত, নাক বরাবর ঘুষি, চুল টেনে ছিরে ফেলেছে।  বাবা খুঁজতে বের হয়েছে রাস্তায়। তার (সোহাগী) জুতা চুল, একটু দূরে মোবাইলটা, আর একটু দূরে তনুর লাশ, বাবা চিৎকার করে বলল মা, মা, মা, মা আমার।’
খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে রাত সাড়ে ১০টার দিকে ময়নামতি সেনানিবাসের অভ্যন্তরে পাওয়ার হাউসের পানির ট্যাংক সংলগ্ন স্থানে সোহাগীর মৃতদেহ পাওয়া যায়। গলাকাটা মৃতদেহ নগ্ন অবস্থায় কালভার্টের পাশে ঝোপঝাড়ের ভেতর পড়েছিলো। নাক দিয়ে রক্ত ঝরছিলো। মোবাইল ফোনটিও পড়েছিল পাশে।
প্রশ্ন হলো – কারা এই দৃর্বত্ত ?
কী তাদের পরিচয় ?
সমাজ থেকে এভাবে প্রতিদিন শত শত তনুকে ধর্ষন পরবর্তী খুন করে নগ্ন শরীর ডোবায় কিংবা জঙ্গলে পরে থাকে । বিচার করবার কেউ নাই । প্রহসনের এই দেশে বিচার নামক শব্দটিই আজ আকাশের চাঁদের মতো অনেক দূরে ‌দূর্লভ্য বস্তু হয়ে গিয়েছে ।
চোখের জল বাঁধা মানছে না! কি শুরু হয়েছে এসব এই দেশে  কার কাছে বিচার চাইবো ? বিচারহীনতার সংস্কৃতির এই দেশে ।

বড়ই অবাক কাণ্ড – চারপাশে গোলা বারুদ ও বিদেশী অস্র দিয়ে নিরাপত্তায় ঢাকা ‘ক্যান্টনমেন্টে ও মানুষ খুন হয় ” ? আর লাশ পাওয়া যায় ক্যান্টনমেন্টের বনে ??
হায়রে দেশ ! হায়রে সমাজ !
হায়রে স্বাধীন বাংলাদেশ ! হায়রে মুক্তিযদ্ধের চেতনা ।
যেই চেতনা প্রতিদিনই আমাদেরকে কয়েকটা করে ফেলানি উপহার দিচ্ছে ।
আসুন জেগে উঠি তনু হত্যার বিচার চাই। আর কোনো তনুকে এমন পরিস্থিতির সম্মুখীন যেন হতে না হয়।

লেখক: সাংবাদিক, সংগঠক ও সমাজকর্মী

(মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয় )

3

Related Posts

Leave a Comment


cheap jerseyscheap jerseyscheap nfl jerseyscheap jerseys from chinacheap mlb jerseyscheap nhl jerseyscheap jerseyscheap nfl jerseyscheap mlb jerseyscheap nfl jerseys