Home সারাদেশ প্রেমের বলি বিশ্বনাথের জালাল

প্রেমের বলি বিশ্বনাথের জালাল

by jonoterdak24
0 comment

 

11স্টাফ রিপোর্টার দর্জির কাজ শেখাতে গিয়ে পার্শ্ববর্তী বাড়ীর লন্ডন প্রবাসী আব্দুল মতলিব’র  স্ত্রীর রুবি বেগম (২৩) এর সাথে দর্জি জালালের প্রেমের সম্পর্ক ঘরে ওঠে, প্রেম থেকে সম্পর্ক শারীরিক সম্পর্কে গড়ায় আর এই সম্পর্ক জেনে যায় প্রবাসীর ভাই আব্দুস সোবহান, পারিবারিক সম্মান বাচাতে শুরু হয় হত্যার পরিকল্পনা। পরিকল্পনা অনুযায়ী দর্জি জালালকে চার মাস আগে হত্যার পরিকল্পনা করে ঘাতকরা। ছক অনুযায়ী ২৩ জুন রাতে তারা তাকে হত্যা করে।

সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলায় দর্জি আখলিছুর রহমান জালাল (২৭) হত্যা মামলায় এভাকেই স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছে দুই শিক্ষার্থী। দক্ষিণ সুরমার নাজিরবাজার উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্র  বাবলু (১৬) এবং  বিশ্বনাথ ডিগ্রী কলেজের স্নাতক শ্রেণীর ছাত্র শিপন (১৮) আদালতে জবানবন্দি প্রদান করে।

হত্যার ঘটনায় সোমবার বিকালে তারা  সিলেটের অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তহুরা খাতুনের আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দেয়। এছাড়া, আটক অপর আসামী দোকান কর্মচারী নছিরকে ৪ দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তিন আসামীর  ২ জনের  বাড়িই তাজ মহররম গ্রামে এক জনের বাড়ী বিশ্বনাথেরগাও গ্রামে।

নছিরের রিমান্ড শেষে জানা যাবে এই আলোচিত হত্যাকান্ডের মূলহোতা কে। কি ছিল জালালের অপরাধ? কেনইবা তাকে হত্যা করা হল ? নাকি এই হত্যাকান্ডের অন্যকোন দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা আছে, না এই হত্যার মাধ্যমে ৩য় কোন পক্ষকে ফাসানোর ষড়যন্ত্র ? সূত্র থেকে জানা যায় আজ থেকে ২৩ বছর পূর্বে একই পরিবারের এক সদস্যর মাধ্যমে দর্জি জালালের বড় ভাইকে তৎকালীন বেবিটেক্সি ধারা দ্রুত পালিয়ে যাওয়ার সময় সড়ক দূর্ঘটনায় মারা যায়।

স্বীকারোক্তির বরাত দিয়ে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের এডিসি (সদর দক্ষিণ) জেদান আল মুসা জানান, পরিকল্পনা অনুযায়ী  ২৩ জুন তারা জালালকে মোবাইল ফোনে ডেকে নেয়। এরপর তারা বাঁশ দিয়ে আঘাত করে জালালকে মাটিতে ফেলে দেয়। শিপন ও বাবলুর শিকারোক্তিতে জানা যায় দোকান কর্মচারী নছির ছুরি দিয়ে গলাকেটে তাকে হত্যা করে। তিনি জানান, মোবাইল ফোনের কললিস্টের সূত্র ধরে পুলিশ রোববার বিকালে তিন আসামীকে আটক করে।

গত ২৩ জুন দিবাগত রাতে বিশ্বনাথ উপজেলার তাজমহরম গ্রামের সীমান্তবর্তী (দক্ষিণ সুরমা উপজেলাধীন) এলাকায় খুন হন দর্জি আখলিছুর রহমান জালাল (২৭)। তিনি বিশ্বনাথ উপজেলার তাজমহরম গ্রামের মৃত হাজী সমশের আলীর পুত্র। সিলেট নগরীর শুকরিয়া মার্কেটের নাইস টেইলার্সের দর্জি ছিলেন। এ ঘটনায় তার ছোট ভাই হেলাল আহমদ বাদী হয়ে দক্ষিণ সুরমা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলার প্রেক্ষিতে পুলিশ তিন আসামীকে গ্রেফতার করে।

Related Posts

Leave a Comment


cheap jerseyscheap jerseyscheap nfl jerseyscheap jerseys from chinacheap mlb jerseyscheap nhl jerseyscheap jerseyscheap nfl jerseyscheap mlb jerseyscheap nfl jerseys