Home আন্তর্জাতিক রাগীব-রাবেয়া মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল সরিয়ে নেয়ার নির্দেশ

রাগীব-রাবেয়া মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল সরিয়ে নেয়ার নির্দেশ

by jonoterdak24
0 comment

ডেস্ক:সুপ্রীমকোর্টের আপিল বিভাগ এক রায়ে রাগীব আলী কর্তৃক সরকারের থেকে ক্ষতিপূরণ বাবত ৩০,৭৬,১৮৯.২০ টাকা উত্তোলন সম্পূর্ণভাবে অবৈধ এবং এখতিয়ার বহির্ভূত। এই আদেশ পাওয়ার ৭ দিনের মধ্যে আইনানুগ সেবায়েতের অনুপস্থিতে উক্ত দেবীর নামে নির্ধারিত একাউন্টে উত্তোলিত টাকা জমা দেয়ার জন্য নির্দেশ প্রদান করেছেন।
এছাড়া আপিল বিভাগ তারাপুর চা বাগান হতে রাগীব-রাবেয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সরিয়ে নেয়া, তারাপুর চা বাগানের অংশ বিশেষে মেডিকেল কলেজ, আবাসিক প্রকল্প এবং অন্যান্য উদ্দেশ্যে সম্পত্তির ব্যবহার সম্পূর্ণভাবে অবৈধ, এ বাগানকে পূর্বাবস্থায় ফিরিয়ে নেয়াসহ ১৭টি (সতের) নির্দেশ দিয়ে রায় প্রদান করেছেন।
রাগীব আলীর পুত্র আব্দুল হাইয়ের দায়েরকৃত এক রিট পিটিশনের প্রেক্ষিতে আপিল বিভাগের চার বিচারক যথাক্রমে, প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা, বিচারপতি নাজমুন আরা সুলতানা, বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন ও বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিক এর সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ গত ১২ জানুয়ারী ২০১৬ইং ও ১৯ জানুয়ারী ২০১৬ইং তারিখে শুনানী শেষে ১৯ জানুয়ারী ২০১৬ইং তারিখে বহুল আলোচিত এ রিটের রায় ঘোষণা করেন।
রায়ে বলা হয়েছে তারাপুর চা বাগান দেবোত্তর সম্পত্তি হিসেবে কোন ভাবে সেবায়েত বা সেবায়েতের মনোয়নীত ব্যক্তি কর্তৃক স্থানান্তরিত হতে পারবে না। অভিযুক্ত সেবায়েত কর্তৃক ৯৯ বছরের জন্য তারাপুর চা বাগানকে স্থানান্তর বা লীজ প্রদান করা সম্পূর্ণ ভাবে  আইন বিরুদ্ধ। প্রতিষ্ঠান কর্তৃক (ট্রাস্টের) দেবীর মূর্তি প্রথম স্থাপিত জায়গায় স্থাপিত হবে। যদি তা ইতিমধ্যে স্থানান্তরিত হয়ে থাকে। রিট আবেদনকারী আব্দুল হাই ও রাগীব আলীকে তারাপুর চা বাগানের খালি জায়গায় দেবী মোতায়েনের কাজে এই আদেশের এক মাসের মধ্যে স্থানান্তরের আদেশ দেয়া হয়।
রায়ে তারাপুর চা বাগানের সমস্ত নির্মিত অবকাঠামো ৬ (ছয়) মাসের মধ্যে অপসারণ করে সে জায়গায় চা বাগান করার আদেশ দেয়া হয়। রিট আবেদনকারীরা যদি তা করতে ব্যর্থ হয় তখন পুলিশ ও সিটি কর্পোরেশনের সহায়তা নিয়ে অপসারণ করবেন। এ বাবতে ব্যয়িত অর্থ জেলা প্রশাসক রিট আবেদনকারীদের কাছ থেকে গ্রহণ করবেন।
আপিল বিভাগের ওই রায়ে সেবায়েতের অনুপস্থিতিতে সিলেট শহরের ১০ (দশ) জন নেতৃস্থানীয় সেবায়েত বা পুরোহিতের পরামর্শক্রমে সেবায়েত নিয়োগ দানের জন্য আদেশ দেয়া হয়। রিট আবেদনের ১০ নং অনুচ্ছেদে বর্ণিত চা রপ্তানী বাবত আয়ের ৫ কোটি টাকা সেবায়েতের কাছে ফেরত দানের নির্দেশ দেয়া হয়।
আপিল বিভাগ উপরোক্ত রায়ে সিলেটের জেলা প্রশাসককেও কিছু নির্দেশনা প্রদান করেছেন। এর মধ্যে রয়েছে জেলা প্রশাসক আপিল বিভাগে প্রদত্ত রায়ের আদেশগুলো বাস্তবায়ন হচ্ছে কি না তা পর্যবেক্ষণ করবেন। রিট আবেদনকারীরা যদি এ আদেশ না মানে সে ক্ষেত্রে তিনি আইনগত ব্যবস্থা নেবেন। উপযুক্ত জায়গায় মেডিকেল কলেজটিকে স্থানান্তর করবেন। রিট আবেদনকারীদের সমস্ত ব্যাংক একাউন্ট জব্দ করবেন এবং মেডিকেল কলেজের জন্য সাময়িক লীজ নেয়ার জন্য অর্থ প্রয়োজনে এই সব জব্দকৃত একাউন্ট থেকে টাকা উত্তোলন করতে পারবেন। রিট আবেদনকারীরা যদি চা বাগান পুন:নির্মাণে ব্যর্থ হন সেক্ষেত্রে জেলা প্রশাসক একটি কমিটি গঠন করে এ কাজটি সম্পন্ন করবেন। এ বাবতে যে অর্থ ব্যয় হবে তা তাদের স্থাবর ও অস্থাবর সম্পত্তি থেকে আদায় করবেন। একই সাথে কোতোয়ালী থানার ১১৭ নং মামলাটি চালু করার জন্য নির্দেশ করা হয়।সূত্র–দৈনিক কাজিরবাজারcobi

Related Posts

Leave a Comment


cheap jerseyscheap jerseyscheap nfl jerseyscheap jerseys from chinacheap mlb jerseyscheap nhl jerseyscheap jerseyscheap nfl jerseyscheap mlb jerseyscheap nfl jerseys