Home রাজনীতি সিলেটে কঠিন পরীক্ষায় পাপলু, ফারুক ও লুৎফুর

সিলেটে কঠিন পরীক্ষায় পাপলু, ফারুক ও লুৎফুর

by jonoterdak24
0 comment

 জসিম উদিদন :সিলেট, শুক্রবার, ২৫ ডিসেম্বর ২০১৫ :: পৌরসভা নির্বাচনে সিলেটের বর্তমান তিন মেয়র অবর্তীণ হয়েছেন কঠিন পরীক্ষায়। নিজ দল ও দলের বাইরে তাদেরকে মোকাবেলা করতে হচ্ছে নানা প্রতিকুল পরিস্থিতি। মেয়রের চেয়ার দখলে রাখতে তারা রাতদিন ধর্ণা দিচ্ছেন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে। কিন্তু বিগত দিনে এলাকার কাঙ্খিত উন্নয়ন করতে না পারা, দলীয় নেতাকর্মীদের অবমূল্যায়ন ও ভোটারদের দাবি-দাওয়ার প্রতি নজর না দেয়ায় ভোটযুদ্ধে তারা খুব একটা সুবিধা করতে পারছেন না। সুযোগ বুঝে ভোটাররাও মুখ ফিরিয়ে রেখেছেন বর্তমান মেয়রদের দিক থেকে। সিলেটের তিনটি পৌরসভার মধ্যে বর্তমানে গোলাপগঞ্জ ও কানাইঘাটে আওয়ামী লীগ এবং জকিগঞ্জে জাতীয় পার্টির মেয়র দায়িত্ব পালন করছেন। এর মধ্যে গোলাপগঞ্জ পৌরসভায় দলীয় প্রতীক নৌকা নিয়ে মেয়র প্রার্থী হয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক বর্তমান মেয়র জাকারিয়া আহমদ পাপলু। দুইবারের এ মেয়রের বিরুদ্ধে রয়েছে অনিয়ম, দুর্নীতি এবং এলাকার মুরব্বী ও নেতাকর্মীদের সাথে অসদাচরণের অভিযোগ। এই ক্ষোভ থেকে এবার দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে প্রার্থী হয়েছেন আওয়ামী লীগের আরও দুই প্রার্থী। এদের একজন হচ্ছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল জব্বার চৌধুরী ও অপরজন হচ্ছেন যুক্তরাজ্য যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম রাবেল।পাপলুর সাথে দূরত্ব সৃষ্টি হওয়ায় স্থানীয় আওয়ামী লীগের বড় অংশের নেতাকর্মীরা বিদ্রোহী প্রার্থী সিরাজুল জব্বারের পক্ষে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। পৌর এলাকার সুশীল সমাজও কাজ করছেন সিরাজুল জব্বারের পক্ষে। ফলে বিদ্রোহী প্রার্থী চেয়ে পিছিয়ে পড়েছেন পাপলু। যদিও মুখে পাপলু এই পিছিয়ে পড়ার বিষয়টি স্বীকার করতে নারাজ। তার দাবি অতীতের দুইটি নির্বাচনে তার সাথে সিরাজুল জব্বার নির্বাচন করে পরাজিত হয়েছেন। এবার নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করায় তিনি আরও শক্তিশালী অবস্থানে রয়েছেন।স্থানীয় ভোটারদের সাথে আলাপকালে জানা যায়- প্রচারণার শুরুতে এগিয়ে থাকলেও শেষ পর্যন্ত দলের বড় একটি অংশ সিরাজুল জব্বারের পক্ষে মাঠে নামায় বেকায়দায় পড়েছেন পাপলু। নির্বাচনে ঘরের প্রতিদ্বন্দ্বি সিরাজুল জব্বার ও বিএনপির প্রার্থী গোলাম কিবরিয়া চৌধুরী শাহীনকে ঠেক্কা দিয় চেয়ার ধরে রাখা পাপলুর পক্ষে কষ্ঠসাধ্য হয়ে দাঁড়িয়েছে।জকিগঞ্জ পৌরসভার বর্তমান মেয়র আবদুল মালেক ফারুক পৌর জাতীয় পার্টির সভাপতির দায়িত্বে রয়েছেন। বিগত নির্বাচনে এ পৌরসভায় বিজয়ী হয়েছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন সোনাউল্লাহ। তার মৃত্যুতে মেয়র পদ শূণ্য হলে উপ নির্বাচনে বিজয়ী হন ফারুক। তবে ওই উপ নির্বাচনে কোন প্রার্থী ছিল না আওয়ামী লীগ ও বিএনপির। ফলে অনেকটা খালি মাঠে গোল দিয়েছিলেন তিনি। এবার আওয়ামী লীগ, বিএনপি, খেলাফত মজলিস ও আল ইসলাহ প্রার্থী দেওয়ায় ভোটের দৌঁড়ে পিছিয়ে পড়েছেন ফারুক। জকিগঞ্জে জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক অবস্থা শক্তিশালী না হওয়ায় শেষ পর্যন্ত তার ঘুরে দাঁড়ানোও সম্ভব নাও হতে পারে বলে মনেকরছেন স্থানীয়রা।কানাইঘাট পৌরসভা নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পেয়েও স্বস্তিতে নেই উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক ও বর্তমান মেয়র লুৎফুর রহমান। তাকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে মাঠে রয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন আল মিজান। এ পৌরসভায় আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরিণ দ্বন্দ্বের সুফল নিতে মরিয়া জামায়াত। গত নির্বাচনে দ্বিতীয় হওয়া জামায়াত নেতা অলিউল্লাহ এবারও প্রার্থী হয়েছেন স্বতন্ত্রের ব্যানারে। বিদ্রোহী নিজাম না প্রতিদ্বন্দ্বি জামায়াতের প্রার্থীকে সামাল দেবেন এ নিয়ে ত্রাহি অবস্থা বর্তমান মেয়র লুৎফুরের। গৃহবিবাদ মিটাতে না পারলে গতবার যাকে পরাজিত করে মেয়র হয়েছিলেন সেই অলিউল্লাহর কাছেই এবার লুৎফুর রহমানের ধরাশায়ী হওয়ার আশঙ্কা করছেন ভোটাররা।

 

Related Posts

Leave a Comment


cheap jerseyscheap jerseyscheap nfl jerseyscheap jerseys from chinacheap mlb jerseyscheap nhl jerseyscheap jerseyscheap nfl jerseyscheap mlb jerseyscheap nfl jerseys